Home / রূপ চর্চা / ছোট্ট সোনামণিদের যত্ন

ছোট্ট সোনামণিদের যত্ন

দেখতে দেখতে চলে এসেছে শীত, আর হুট করেই কদিন যাবত বেশ জাঁকিয়ে বসেছে। এটাই কিন্তু সময় বাড়ির সকলের স্বাস্থ্যের দিকে মনযোগ দেবার। বিশেষ করে বাড়ির ছোট্ট সদস্যদের প্রতি। তারা নিজের খেয়াল নিজে রাখতে পারে না, ব্যাপারটা বোঝেও না। তাই আপনাকেই দিতে হবে বিশেষ মনযোগ। কেননা এই হুট করে ঋতু পরিবর্তনের সময়টাতেই ওদের হতে পারে নানান রকমের মৌসুমি রোগ-ব্যাধি।

কী কী করতে পারেন ছোট্ট সোনামণিদের যতেœ? চলুন, জেনে নিই কিছু কার্যকরী টিপস।

•শীতের কাপড় না ধুয়ে ছোটদের পরতে দেবেন না। জমে থাকা জীবাণুতে নানান রকমের রোগ ব্যাধি হতে পারে। এমনকি মার্কেট থেকে কিনে আনার পরও ধুয়ে তারপর পরতে দিন।

• শুধু গোসলেই নয়, ওদের হাতমুখ ধোয়ার কাজেও কুসুম গরম পানি ব্যবহার করুন। সাথে অবশ্য অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল সোপ।

• শীত বলে ব্যক্তিগত পরিচ্ছন্নতায় অবহেলা করবেন না। নিয়মিত গোসল করান, খুব বেশি হলে একদিন পর পর। বেলা ১২ টার আগেই গোসলের পর্ব সেরে ফেলুন। ভালো করে মাথা মুছিয়ে, শরীর শুকিয়ে তারপর পোশাক পরান। অবশ্য বেবি লোশন লাগিয়ে দেবেন। আর খুব দীর্ঘ সময় গোসল করানোর প্রয়োজন নেই।
• যেদিন গোসল করাবেন না, সেদিন অবশ্যই পোশাক বদলে দিন। কখনো এক পোশাকে রাখবেন না।

• ক্গোসলের আগে সারা শরীরে অলিভ অয়েল ম্যাসাজ করে দিন। শিশুদের জন্য এটা খুবই স্বাস্থ্যকর। ওদের জন্য আলাদা লিপবামও ব্যবহার করুন।

• অবশ্য খালি পায়ে থাকতে দেবেন না। ঘরের মাঝে নরম স্যান্ডেল পোড়া অভ্যাস করান। এছাড়া সন্ধ্যা হলে মোজাও পরিয়ে দিন।

• এই মৌসুমে নানান রকমের রোগ বালাই থেকে দূরে থাকতে ছোট্ট সোনামণিদের খাওয়ান মৌসুমি ফল সবজি। মৌসুমি ফল ও সবজির মাঝে মৌসুমি রোগ বালাই মোকাবেলা করার সকল গুণ উপস্থিত থাকে।

• শীতের দিনে শিশুরা পানি পান করতে চায় না। হালকা কুসুম গরম পানি মধু মিশিয়ে খাওয়াতে পারেন। আবার স্যুপ,জুস ইতাদি তরল খাবারও খাওয়াতে পারেন।

• সর্দি কাশিতে চিকেন স্যুপ খুব উপকারী দ্রুত রোগ সারাতে এবং শক্তি বৃদ্ধি করতে।

• ছোট্ট সোনামণিদের দৈনিক এক চামচ মধু খাওয়ান। এতে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়বে ও সর্দি-কাশি কিংবা ঠাণ্ডা লাগার ঝামেলা একদম কমে যাবে।

About admin

Check Also

১০ উপায়ে চিরতরে খুসকি দূর করুন

আসছে না আসছে করেও কিন্তু শেষেমেষ শীত এসে হাজির। নানা রকম সবজিতে ভরে গেছে বাজার। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *